Overview

slider3সেন্ট্রাল শরীয়াহ্ বোর্ড ফর ইসলামিক ব্যাংকস্ অব বাংলাদেশ : ‘সেন্ট্রাল শরীয়াহ্ বোর্ড ফর ইসলামিক ব্যাংকস্ অব বাংলাদেশ’ বাংলাদেশে কার্যরত ইসলামী ব্যাংক ও ইসলামী ব্যাংকিং শাখা/উইন্ডোধারী ব্যাংকসমূহের সমন্বয়ে গঠিত একটি জাতীয় অলাভজনক গবেষণামূলক ইসলামী প্রতিষ্ঠান। এটি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অধীনে নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠান। যার রেজিস্ট্রেশন নম্বর : এস-৯৯২২/০৯।

ইসলামী ব্যাংকিং শিল্পকে শরী‘আহ্র দিকনির্দেশনা ও নীতিমালার আলোকে সঠিক পথপ্রদর্শনের ক্ষেত্রে সরকার, কেন্দ্রীয় ব্যাংক, রেগুলেটরি কর্তৃপক্ষ এবং সদস্যব্যাংকসমূহকে সার্বিক দিকনির্দেশনা প্রদান করা এবং তাদের কার্যক্রম শরী‘আহ্র নিরীখে তত্ত্বাবধান করা এর মূল উদ্দেশ্য।

ঐতিহাসিক পটভূমি : বাংলাদেশে প্রথম ইসলামী ব্যাংকিং কার্যক্রম শুরু হয় ১৯৮৩ সালে। এর অভাবনীয় সাফল্যের প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদন ও সহযোগিতায় এরপর থেকে বাংলাদেশে নতুন নতুন শরী‘আহ্ভিত্তিক ব্যাংক প্রতিষ্ঠিত হতে থাকে। এ ছাড়াও দেশে প্রতিষ্ঠিত কয়েকটি কনভেনশনাল ব্যাংক তাদের ‘ইসলামী ব্যাংকিং শাখা’ চালু এবং কয়েকটি ব্যাংক পূর্ণাঙ্গ ইসলামী ব্যাংকে রূপান্তরের মাধ্যমে ইসলামী ব্যাংকিংয়ের অগ্রযাত্রায় শামিল হয়।

ইসলামী ব্যাংকের সংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে ইসলামী ব্যাংকিং কর্মকাণ্ডের পরিসরও দ্রুত বিস্তার লাভ করতে থাকে। ফলে বাংলাদেশে কর্মরত ইসলামী ব্যাংকসমূহ ও ইসলামী ব্যাংকিং শাখাসমূহের মধ্যে পারস্পরিক সৌহার্দ্য ও স¤প্রীতি গড়ে তোলা এবং ইসলামী ব্যাংকিংয়ের সঠিক ও পরিপূর্ণ বাস্তবায়নের নিমিত্তে সম্মিলিতভাবে যৌথ ও একক সিদ্ধান্ত প্রণয়ন করা সময়ের অপরিহার্য দাবিতে পরিণত হয়। ফলশ্রুতিতে ১৯৯৭ ঈসায়ী সালে বাংলাদেশ ব্যাংক ইসলামী ব্যাংকসমূহের প্রধান নির্বাহীবৃন্দকে ইসলামী ব্যাংকিংয়ের গতিশীলতা বৃদ্ধিকরণের লক্ষ্যে কয়েকটি সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা প্রদান করে।

ইসলামী ব্যাংকিং নিয়মাচার নিশ্চিতকরণের পাশাপাশি বিভিন্ন শরী‘আহ্ ইস্যুতে সম্মিলিতভাবে একক ও সামঞ্জস্যপূর্ণ নীতি-সিদ্ধান্ত (ফাত্ওয়া) গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করার জন্য ইসলামী ব্যাংকসমূহের শরী‘আহ্ বোর্ড বা কাউন্সিলসমূহের সমন্বয়ে একটি যৌথ শরী‘আহ্ বোর্ড গঠনের ব্যাপারে বাংলাদেশ ব্যাংক উক্ত নির্দেশনাপত্রে ইসলামী ব্যাংকসমূহের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। নির্দেশনাপত্রে প্রদত্ত বাংলাদেশ ব্যাংকের বক্তব্য নিম্নরূপ:

“ইসলামী ব্যাংকসমূহের প্রত্যেকের নিজস্ব শরীয়াহ্ বোর্ড বা কাউন্সিল স্ব স্ব ক্ষেত্রে ইসলামী ব্যাংকিং নিয়মাচার নিশ্চিতকরণের পাশাপাশি বিভিন্ন শরীয়াহ্ ইস্যুতে সম্মিলিতভাবে একক ও সামঞ্জস্যপূর্ণ নীতি-সিদ্ধান্ত (ফত্ওয়া) গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা একান্ত প্রয়োজন। এজন্য ইসলামী ব্যাংকসমূহের শরীয়াহ্ বোর্ড বা কাউন্সিলসমূহের সমন্বয়ে একটি যৌথ শরীয়াহ্ বোর্ড (Common Shari’ah Board) গঠন করা যায় কি না সে ব্যাপারে বিচার-বিবেচনা করা যেতে পারে।”

সেন্ট্রাল শরীয়াহ্ বোর্ড প্রতিষ্ঠা : বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে উক্ত নির্দেশনা প্রাপ্তির পর থেকেই একটি যৌথ শরী‘আহ্ বোর্ড বা সম্মিলিত শরী‘আহ্ বোর্ড গঠনের জন্য ইসলামী ব্যাংকসমূহ বিভিন্নভাবে উদ্যোগ-প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখে। অতঃপর ২০০১ ঈসায়ী সালের ১৬ আগস্ট অনুষ্ঠিত এক সভায় ইসলামী ব্যাংকসমূহ একটি যৌথ শরী‘আহ্ বোর্ড গঠনে একমত হয়। ঐতিহাসিক সে সভার যুগান্তকারী সিদ্ধান্তে সেদিন-ই প্রতিষ্ঠিত হয় ‘বাংলাদেশের ইসলামী ব্যাংকসমূহের কেন্দ্রীয় শরীয়াহ্ বোর্ড’ বা ‘সেন্ট্রাল শরীয়াহ্ বোর্ড ফর ইসলামিক ব্যাংকস্ অব বাংলাদেশ’।

বাংলাদেশে ইসলামী ব্যাংকিং সেবা প্রদানকারী ব্যাংকসমূহের শরী‘আহ্ কাউন্সিল/সুপারভাইজরি কমিটির চেয়ারম্যান ও সদস্যসচিব/সচিববৃন্দ এবং উক্ত ব্যাংকসমূহের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকগণ পদাধিকারবলে ‘সেন্ট্রাল শরীয়াহ্ বোর্ড ফর ইসলামিক ব্যাংকস্ অব বাংলাদেশ’-এর সদস্য। বর্তমানে এর সম্মানিত সদস্যসংখ্যা ৬৫ জন এবং সদস্যপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২১টি।